এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঝড় উঠেছে। পড়ার টেবিল থেকে শুরু করে অফিসের টেবিল, দোকানের চায়ের টেবিল—সর্বত্র একই আলোচনা। যেহেতু বাংলাদেশ বিশ্বকাপ খেলে না; তাই দর্শকেরা ভাগ হয়ে যান বড় বড় দলের সমর্থনে। নির্বাচনের মতো এখানেও চলে নিজ দলে ভেড়ানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা। ফেসবুকে চলছে জরিপ, কোন দলের সমর্থক বেশি ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা নাকি জার্মানি?

বিশ্বে ব্রাজিলই একমাত্র দল, যারা সব কটি বিশ্বকাপে খেলেছে। ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সমর্থক বাংলাদেশে বেশি, এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। তাই এই দুই দলকে নিয়ে মাতামাতিও বেশি। পাশাপাশি আছে ৪ বারের শিরোপাজয়ী জার্মানি এবং ২ বার শিরোপাজয়ী ফ্রান্সসহ অন্যান্য দলের সমর্থক। বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে হলে গঠন হচ্ছে বিভিন্ন দলের ফ্যান ক্লাব, দলের সমর্থনে মিছিল হচ্ছে। টিভি রুমসহ বিভিন্ন স্থানে চিত্রাঙ্কন করা হয়েছে নিজ দলের পতাকা। অনেকে একই দলের রাজনীতি করলেও বিশ্বকাপের সময় তাদের পথ ও মত ভিন্ন।

বিশ্বকাপ এলে চারদিকে সাজ সাজ রব পড়ে যায়। অধিকাংশ বাড়িতে শোভা পায় প্রিয় দলের পতাকা এবং অনেকের গায়ে থাকে জার্সি। অনেকে নিজের বাড়িটিও রঙিন করেন প্রিয় দলের রঙে। এমনই একটি বাড়ির নাম ব্রাজিল বাড়ি। সিরাজগঞ্জ শহরের মোক্তারপাড়া এলাকায় পরিবহন ব্যবসায়ী লিটন সরকার কাতার বিশ্বকাপকে সামনে রেখে তাঁর দোতলা বাড়িটি রং করেছেন ব্রাজিলের পতাকার আদলে। ওপরে রয়েছে লাল সবুজের বাংলাদেশের পতাকা। বাড়ির নামকরণ করেছেন ‘ব্রাজিল বাড়ি’ নামে। প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে মানুষ আসছেন ‘ব্রাজিল বাড়ি’ দেখতে।

পিছিয়ে নেই আর্জেন্টিনা ভক্তরাও, তারাও কম কিসে। দ্বীপ জেলা ভোলা সদরের বাপ্তা ইউনিয়নের বাসিন্দা অজিৎ দে আর্জেন্টিনা ফুটবল দলকে ভালোবেসে আর্জেন্টিনার পতাকার আদলে সাজিয়েছেন নিজের বাড়ি। বাড়িটি ‘আর্জেন্টিনা বাড়ি’ নামে পরিচিতি লাভ করেছে। প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে মানুষ আসছেন ‘আর্জেন্টিনা বাড়ি’ দেখতে।

কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের উন্মাদনায় জামালপুরের ইসলামপুরে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার দুই ভক্ত পাশাপাশি দুই বাড়ি সাজিয়েছেন নিজেদের প্রিয় দলের পতাকার আদলে। ইসলামপুর উপজেলার চরদাদনা গ্রামের ব্রাজিলের ভক্ত মিনহাজ ইসলাম নিজের বাড়িকে সাজিয়েছেন ব্রাজিলের পতাকার আদলে। বাড়ির দেয়ালে অঙ্কন করেছেন প্রিয় খেলোয়াড় নেইমার, রোনাল দিনহো ও পেলের ছবি। মিনহাজ ইসলামের প্রতিবেশী শামীম হাসান নিজের বাড়িকে সাজিয়েছেন আর্জেন্টিনার পতাকার আদলে।

বাড়ির দেয়ালে অঙ্কন করেছেন প্রিয় খেলোয়াড় মেসি ও ম্যারাডোনার ছবি। স্থানীয় লোকজনের কাছে ইতিমধ্যে বাড়ি দুটি পরিচিতি পেয়েছে মেসি-নেইমারের বাড়ি বা ‘আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল বাড়ি’ নামে।

শুধু বাড়ি নয়, শুরু হয়েছে প্রিয় দলের পতাকা তৈরির প্রতিযোগিতা। কোন দলের কত লম্বা পতাকা তৈরি করতে পারে। যশোরের কেশবপুরে জাহানপুর গ্রামের ব্রাজিল ফ্যানস ক্লাবের সদস্যরা ৩৫০ হাত লম্বা পতাকা তৈরি করেছে। ব্রাজিল ফ্যানস ক্লাবের সদস্যদেও টেক্কা দিতে একই গ্রামের আর্জেন্টিনার সমর্থকেরা তৈরি করেছেন ৫০০ হাত লম্বা পতাকা। সাতক্ষীরার তালা উপজেলায়ও প্রিয় দলের পতাকা তৈরির প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।

১৮ নভেম্বর শুক্রবার ব্রাজিলের সমর্থকেরা ৫০০ হাত পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা করে। পরের দিন ১৯ নভেম্বর শনিবার আর্জেন্টিনার সমর্থকেরা ৬০০ হাত লম্বা পতাকা নিয়ে শোভাযাত্রা করেছেন।

সারা দেশে বাড়ির ছাদে, গাছের ডালে পতপত করে উড়ছে পছন্দের দলের পতাকা। আবার অসতর্কতার কারণে কেউ কেউ পতাকা টাঙাতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতি উপজেলার এক আর্জেন্টিনার সমর্থক বিবিরহাট রশিদিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র নাবিল হোসেন বৈদ্যুতিক খুঁটিতে আর্জেন্টিনার পতাকা লাগাতে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যান।

বিশ্ব এখন তাকিয়ে আছে কাতারের দিকে, কখন পর্দা উঠবে সেই মাহেন্দ্রক্ষণের। খেলা আনন্দের জন্য। প্রতিটি দলের সেরা খেলাটি দেখে আমরা আনন্দ উপভোগ করতে চাই। ৩২টি দল অংশগ্রহণ করবে, কিন্তু বিশ্বকাপ জিতবে একটি দল। তাই বলে কি ৩১টি দল খারাপ, মোটেও না।

প্রতিটি দলই নিজের যোগ্যতাই বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেয়েছে। যারা সবচেয়ে বেশি ভালো খেলবে বিশ্বকাপ তাদের ঘরেই যাবে। এখন শুধু অপেক্ষার পালা। সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে শুরু ও শেষ হোক বিশ্বকাপের ২২তম আসর। অনেক অনেক শুভকামনা।

লেখক: উন্নয়নকর্মী