বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয় ছুটির পরপরই সবার মধ্যে যেন ঈদ আনন্দের শুরু হয়ে যায়। সবার মধ্যে ঘরে ফেরার তাড়া। কেউ কেউ ব্যাগ গুছিয়ে রেখে এসেছেন ঘরের। কেউ গিয়ে গোছাবেন। সবার মধ্যেই চাপা আনন্দের উত্তেজনা।

গবির আইন বিভাগের দ্বিতীয় সেমিস্টারের শিক্ষার্থী মো. সাজ্জাদুল ইসলাম রিপন বলেন, ‘চাঁদপুরের মতলবে আমার বাড়ি। পরিবারের সবাই সেখানে থাকে। শুধু আমিই এখানে ভর্তি হওয়ার কারণে সাভারে একটি মেস বাসায় থাকি। ঈদের ছুটি পেয়ে তাই বাড়ি চলে যাচ্ছি। ভীষণ সুন্দর একটা অনুভূতি হচ্ছে। সব বন্ধুবান্ধব, বড় ভাই, শিক্ষক সবাইকে ছেড়ে যেতে একটু খারাপ লাগছে। তাদের সঙ্গে সারা মাস রোজা রেখেছি, ইফতার করেছি। কিন্তু ঈদ উদ্‌যাপনের সময় তাঁরা সঙ্গে থাকবেন না। তবুও পরিবারের কথা ভেবে ভালো লাগছে।’

default-image

কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগের নবীন শিক্ষার্থী আবরার জাহিন আয়াত বলেন, ‘দুই মাস পর বাড়ি আসলাম। বড় ছুটি না পাওয়ায় এত দিন যেতে পারছিলাম না। পরিবারকে ভীষণ মিস করতাম। বাড়ি ফিরে খুব ভালো লাগছে। আসলে এবারের ঈদটা আমার কাছে অন্য ঈদ থেকে আলাদা ও স্পেশাল। কারণ, এভাবে আর কোনো দিন এত দিন বাড়ির বাইরে থাকা হয়নি। আর অনেক দিন পর বাড়িতে এসে সবার সঙ্গে ঈদ করতে পারব, ব্যাপারটা অনেক ভালো লাগছে।’

ফার্মেসি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাতেমা হোসেন নিঝুমের বাড়ি মানিকগঞ্জে। তিনি বলেন, পরিবার ছাড়া থাকা খুব কষ্টের। কিন্তু প্রয়োজনের কারণে তবু থাকতে হয়। ঈদে বাড়ি এসে তো অনেক ভালো লাগছে। যদিওবা আমি ১৫ দিন পরপরই বাড়ি আসি, তবুও এবার ঈদে বাড়ি আসার জন্য দিন গুনছিলাম। দিন যেন কাটছিলই না। ঈদ মানে আনন্দ, খুশি। ছোটবেলার মতো অনেক বেশি আনন্দ না লাগলেও ঈদের একটা আলাদা আমেজ তো আছেই। পরিবারের সবাই যেখানেই থাকুক না কেন, ঈদের সময় সবাই একসঙ্গে হয়। সবাই মিলে আড্ডা দেওয়া, খাওয়াদাওয়া করা, ঘুরতে বের হওয়া। সবকিছু মিলে ঈদের আনন্দ অন্য রকম।

ছুটি হওয়ার আগে শেষ দিনে ক্যাম্পাসজুড়ে ছিল ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়ের আনন্দ ও বিদায়ের মূর্ছনা। এ যেন মধুর কষ্ট! তবু এই সময়কে হৃদয়ে রেখে এগিয়ে যেতে হয়। উৎসব উদ্‌যাপন করতে হয়। ঘরে ফিরে যেতে হয় আবারও ফেরার জন্য।

*লেখক: শিক্ষার্থী, গণ বিশ্ববিদ্যালয়

পাঠক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন