নারী-পুরুষ ও শিশুদের উপচে পড়া ভিড়ে উৎসবমুখরতায় অন্য রকম আবেশে রূপ নেয় বৌদ্ধদের এ পবিত্র কঠিন চীবর দান উৎসব। বিভিন্ন দেশের পুণ্যার্থী বৌদ্ধদের সমাগমে এক অভূতপূর্ব মিলনমেলায় পরিণত হয়।

বিকেলে বুদ্ধগয়া প্রজ্ঞাবিহারের পরিচালক ভদন্ত কল্যাণ রত্ন ভিক্ষুর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া দানসভায় ক্যালিফোর্নিয়ার সম্বোধি বিহারের অধ্যক্ষ ও বৌদ্ধ–গবেষক লোকানন্দ মহাথের সভাপতিত্ব করেন। প্রধান অতিথি ছিলেন নাগসেন মহাথের, বিশেষ অতিথি ছিলেন ভদন্ত উ কুমারা ছেয়াদ, ভদন্ত চান্দা নন্দ নায়ক থের, ভিয়েতনামী থিচ মিন ডি।

আশীর্বাদক হিসেবে ভিডিও বার্তা প্রদান করেন ভদন্ত প্রজ্ঞাবংশ মহাথের। অতিথি ছিলেন প্যারিসে নিযুক্ত শ্রীলংকান রাষ্ট্রদূত অধ্যাপক শানিকা হিরিস বুরে গামা। প্রধান ধর্ম দেশক ছিলেন নিউইয়র্ক বাংলাদেশ বিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত মুদিতারত্ন থের। বিশেষ ধর্ম দেশক ছিলেন ফ্রান্স কুশলায়ন বুড্ডিস্ট মেডিটেশন সেন্টারের পরিচালক ভদন্ত জ্যোতিসার থের, ভদন্ত বিজয়ানন্দ থের।

অন্যদের মধ্যে ভদন্ত অনমোদর্শী মহাথের, ভদন্ত চন্দ্রজ্যোতি থের, ভদন্ত আনন্দ থের, ভদন্ত সুমনানন্দ ভিক্ষু, ভদন্ত চিত্তাধাম্মা থের, ভদন্ত প্রিয়রক্ষিত থের, ভদন্ত বুদ্ধ প্রিয় থের প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মঙ্গলাচরণ করেন ভদন্ত শাসন বংশ ভিক্ষু। অনুষ্ঠান উদ্‌যাপন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক সুমন বড়ুয়ার সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন উদ্‌যাপন পরিষদের আহ্বায়ক মিঠু বড়ুয়া, ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন উদ্‌যাপন পরিষদের অর্থ সম্পাদক কানন বড়ুয়া, পঞ্চশীল প্রার্থনা করেন কাজল বড়ুয়া। উদ্বোধনী সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী চয়ন বড়ুয়া ও সহশিল্পীরা। তবলায় সংগত করেন শাপলু চৌধুরী বড়ুয়া।

প্রবাসে অবস্থান ও নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বৌদ্ধদের দানশ্রেষ্ঠ এ কঠিন চীবর দান পুণ্যোৎসবে অংশগ্রহণ করে পেরে পুণ্যার্থী উপাসক-উপাসিকাদের মহামিলনের আশাজাগানিয়া আনন্দের স্ফুরণ ছিল দেখার মতো।

পূজনীয় ভিক্ষুসংঘরাও কঠিন চীবর দানের পুণ্যবার্তায় সবার প্রতি মৈত্রী-করুণা চিত্তে আশীর্বাদ-পুণ্যদান করেন। পাশাপাশি নিরবচ্ছিন্ন নানা অবক্ষয় ও অস্থির পৃথিবীতে শান্তির সুবাতাস প্রবাহিত হোক, এ শুভকামনায় বিশ্বশান্তি প্রার্থনা করেন।

পরে সনজয় বড়ুয়ার পরিচালনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। এতে প্যারিসের স্থানীয় শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করেন।