রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আলোচনায় বক্তারা বলেন, বিশ্বের সাধারণ নাগরিকদের মতো রোহিঙ্গাদেরও একটি স্বাধীন, সুন্দর জীবনের অধিকার আছে। বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের বসবাসের অনুমতি দিয়ে বিশ্বে অনন্য এক মানবিক উদাহরণ সৃষ্টি করেছিল। সভায় অংশগ্রহণকারী যুক্তরাজ্যের সংসদ সদস্যরা শুরু থেকেই রোহিঙ্গা সংকট ইস্যুতে তাদের তদারকি এবং রোহিঙ্গাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তাঁদের আন্তরিকতার কথা উল্লেখ করেন।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘বাংলাদেশ যথেষ্ট করেছে, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার সরকারের জন্য সময় এখনই। মিয়ানমার আমাদের প্রতিবেশী বন্ধুরাষ্ট্র, আমাদের সাথে তাদের কোনো শত্রুতা নেই। রোহিঙ্গা ইস্যু মিয়ানমার সরকারের অভ্যন্তরীণ ইস্যু। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্বনেতাদের এখনই সরব হতে হবে।

রোহিঙ্গাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সারা বিশ্বের উদ্যোগ এখন পর্যন্ত পর্যাপ্ত নয়, যেটা খুব হতাশার। আমি আশা করব, বিশ্ব সম্প্রদায় খুব দ্রুত এ সংকট সমাধানে উদ্যোগী হবে।’