অবশেষে ২৪–এ পা রেখেছে প্রিয় পত্রিকা প্রথম আলো। ছাপা পত্রিকা থেকে শুরু করে অনলাইন পাঠকসংখ্যা—সব দিক থেকে প্রথম আলো আজ বাংলাদেশের শীর্ষে। প্রথম আলোর ওয়েবসাইটটি শুধু সংবাদমাধ্যম হিসেবে নয়, বাংলা ভাষায় সব ধরনের ওয়েবসাইটের মধ্যে গোটা পৃথিবীতে প্রথম স্থান দখল করে রেখেছে। অনলাইন প্রযুক্তি আর নতুন নতুন উদ্যোগ নিয়ে ছাপা পত্রিকার গণ্ডি ছাপিয়ে প্রথম আলো এখন বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ ‘গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান’, যা সত্যি সত্যি আমাদের সবার জন্য গর্বের বিষয়।

প্রথম আলো ও বন্ধুসভা বিভিন্ন সময়ে দেশের তরুণসমাজের মধ্যে নেতৃস্থানীয় গুণাবলি সৃষ্টিতে কাজ করে যাচ্ছে। জাতীয় পর্যায়ে গণিত উৎসব কিংবা ভাষা প্রতিযোগিতার মতো ইভেন্ট আয়োজনের ক্ষেত্রে প্রথম আলোর ভূমিকা সব সময় অগ্রগণ্য।

১৯৯৮ সালে অল্প কজন মানুষের হাতে মুঠোফোন ছিল, আজকে হাতে হাতে মুঠোফোন এবং কোটি কোটি মানুষের মুঠোয় ইন্টারনেট। যেকোনো তথ্য এখন দ্রুত আপনারা হাতের মুঠোয় পেয়ে যান।

প্রথম আলো আজ শুধু একটা ছাপা খবরের কাগজ নয়, অন্যতম বৃহত্তম ডিজিটাল সংবাদমাধ্যম। একই সঙ্গে কিশোর আলো, বিজ্ঞানচিন্তা, গণিত অলিম্পিয়াড থেকে শুরু করে ক্রীড়া পুরস্কার, মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার, প্রথম আলো ট্রাস্ট, প্রথম আলো বন্ধুসভাসহ নানা কার্যক্রমের মাধ্যমে প্রথম আলো এই দেশের তরুণসমাজকে সঙ্গে নিয়ে ভালোর সঙ্গে আলোর পথে চলার কাজটা অব্যাহত রেখে চলেছে।

সত্য তথ্য প্রকাশের কাজটা সাহসের সঙ্গে, সততার সঙ্গে করে যাওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশের বিজয়যাত্রায় প্রথম আলো তার ভূমিকা পালন করে যেতে দ্বিধা করবে না। লেখক হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আমাকে আমার ভাইয়া–আপু সব সময় উৎসাহ দিচ্ছে। সঠিকভাবে বাংলা বানানচর্চার জন্য প্রথম আলোকে অনুসরণ করার পরামর্শ দিয়েছেন। ভালো লিখতে হলে বানানচর্চার খুব বেশি প্রয়োজন, যা আমি প্রতিনিয়ত করে যাচ্ছি। সে জন্য আমার পাশে বন্ধু হিসেবে আছে প্রথম আলো। এই প্রিয় পত্রিকার জন্মদিনে অনেক শুভকামনা রইল। সুন্দর হোক আগামী দিনের পথচলা। লেখক: মো. হাসিবুর রহমান, শিক্ষার্থী ইউনিভার্সিটি অব মাইসুর, ইন্ডিয়ান গভ. স্কলার