গত বছর মহামারিপরবর্তী ধাক্কা সামলে উঠতে স্বাস্থ্যকর্মী ও হোটেল পেশাদার এমন পেশাগুলো প্রাধান্য পেয়েছে। তবে এখন এসব পেশার পাশাপাশি প্রকৌশলী, শিক্ষক, আইসিটি পেশাদার, ইলেকট্রিশিয়ান, শেফ ইত্যাদি পেশারও অগ্রাধিকার বেড়েছে।
অস্ট্রেলিয়ায় সাধারণত একটি প্রতিষ্ঠান স্পনসর করলে অভিবাসী হিসেবে দেশটিতে কাজের ভিসা পাওয়া যায়।

তবে দেশটির রাজ্য সরকারও স্পনসর হিসেবে অভিবাসীদের মনোনীত করতে পারেন। এসব ভিসার মধ্যে অন্যতম হলো স্কিলড নোমিনেটেড সাবক্লাস ১৯০ ভিসা এবং স্কিলড ওয়ার্ক রিজিওনাল সাবক্লাস ৪৯১ ভিসা। নতুন সুবিধায় রাজ্য সরকার মনোনীত করলে এক প্রতিষ্ঠানের হয়ে কাজ করার বাধ্যতা নিয়ে। এ ভিসাগুলো সাধারণত অস্ট্রেলিয়ার বাইরে অবস্থানকারীর জন্য। বেশ কয়েকটি রাজ্য আগে অস্ট্রেলিয়ার বাইরের আবেদন গ্রহণ না করলেও এখন এ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার সব রাজ্য নির্দিষ্টসংখ্যক ভিসা মঞ্জুর করতে পারবে। এ তালিকায় নিউ সাউথ ওয়েলসের রয়েছে ১২ হাজার, ভিক্টোরিয়া ১১ হাজার ৫৭০টি, ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া ৮ হাজার ১৪০টি, কুইন্সল্যান্ড ৪ হাজার ২০০টি, সাউথ অস্ট্রেলিয়া ৫ হাজার ৮৮০টি ইত্যাদি। ভিসা খালি থাকা পর্যন্ত নতুন ভিসা গ্রহণ এবং ভিসা প্রদান করবে অভিবাসন বিভাগ।

লেখক: অভিবাসন আইনজীবী, সিডনি, অস্ট্রেলিয়া