পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অভিবাসী কর্মীরা তাঁদের স্বদেশ এবং স্বাগতিক দেশের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। অভিবাসী কর্মীদের আয়ের মাধ্যমে লাখ লাখ পরিবারের জীবিকার সংস্থান হয়। এ সময় করোনা মহামারির কারণে চাকরি হারিয়ে বাংলাদেশে ফিরে আসা অভিবাসী কর্মীদের পুনর্বাসন করার লক্ষ্যে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের বিষয়ে মন্ত্রী সবাইকে অবহিত করেন।

কোভিড-১৯ অতিমারি থেকে টেকসই পুনরুদ্ধারের জন্য সব অভিবাসী কর্মীকে পুনরুদ্ধার পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করা অতি জরুরি বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেন। এ ছাড়া তিনি অভিবাসী কর্মীদের স্বার্থ ও অধিকার রক্ষায় স্বাগতিক দেশসমূহে যথাযথ আইনি রক্ষাকবচের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

আইওএমের মহাপরিচালক এন্তোনিও ভিতোরিনো এ উচ্চপর্যায়ের সভায় সভাপতিত্ব করেন। কলম্বিয়া, ফিলিপাইন, ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্টসহ বিভিন্ন দেশের মন্ত্রী ও উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধি এ সভায় যোগ দেন। বিজ্ঞপ্তি

দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন