default-image

এরপর মূল অনুষ্ঠানে ডুয়ানির বর্তমান প্রেসিডেন্ট টাফট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক শওকত আনোয়ার প্রথমেই এক এক করে পরিচয় করিয়ে দেন ডুয়ানির নতুন নির্বাহী সদস্যদের। নির্বাহী এ টিম যখন পরিচিতি নেয়, তখন উপস্থিত গ্র্যাজুয়েটস ও অতিথিদের মুহুর্মুহু করতালিতে অডিটোরিয়াম আনন্দে মুখরিত হয়ে ওঠে। এরপর শওকত আনোয়ার তাঁর সুন্দর ও পরিপাটি বক্তব্যে তুলে ধরেন ঢাবির সুদীর্ঘ ইতিহাস, ঢাবির ছাত্র-শিক্ষকদের অবদান ও ভূমিকা, বিশেষ করে ভাষা আন্দোলন থেকে স্বাধীনতাসংগ্রাম, যা নতুন প্রজন্মের কাছে শিক্ষণীয় বিষয়।

আলোচনা শেষে কামরুল হাসান ও ফরিদুর রহমান মিল্টনের উপস্থাপনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। তাতে অংশগ্রহণ করেন আমেরিকান বাংলাদেশি শিশু ও শিল্পীরা। তাঁরা হলেন মাহিবা (কবিতা), সেজা (কবিতা), সামি (পিয়ানো), মাশরুর (পিয়ানো), সমাদৃতা (নাচ), নওরিতা (নাচ), প্রিয়তা (গান), বর্ণিল (গিটার) এবং জুনকো (গান)। ‘আবার এল যে সন্ধ্যা শুধু দুজনে’—প্রিয়তা যখন গানটি গাইছিল, আমাদের মনও যেন তখন ফিরে যেতে চাইছিল প্রাণপ্রিয় সেই ঢাবি ক্যাম্পাসে। বোস্টনের পরিচিত মুখ ও গানের পাখি জুনকো ছিল অনুষ্ঠানের এক বিশেষ আকর্ষণ। সে ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটসের শিক্ষার্থী।

এ ছাড়া ডুয়ানির একাধিক ব্যক্তি এ অনুষ্ঠানে তাদের প্রতিভার ঝলক নানা পরিবেশনার মাধ্যমে তুলে ধরেন। আকরাম ভূঁইয়া (নিজের লেখা কবিতা), জহিরুল ইসলাম মুকুল (স্বরচিত কবিতা), কোভিড-১৯ টিকা আবিষ্কারক প্রতিষ্ঠান বায়ো-এনটেকের বিজ্ঞানী ও ডুয়ানির শিক্ষা সম্পাদক জাকারিয়া খন্দকার ও তাঁর ছেলে বর্ণিল মিলে পাঠ করেন বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলের পুথি।

default-image

এ ছাড়া সাংস্কৃতিক সম্পাদক শিল্পী কখনো এককভাবে আবার কখনো মিল্টনের সঙ্গে সংগীত পরিবেশন করে অনুষ্ঠানটিকে জমিয়ে তোলেন। অনুষ্ঠানের উপস্থাপক কামরুল হাসান এককভাবে ও অন্যদের সঙ্গে বাংলাদেশের চিরচেনা জনপ্রিয় গানগুলো গেয়ে শোনান, যা উপস্থিত সবাইকে আনন্দের খোরাক দেয়।

অনুষ্ঠানে নিউইয়র্কের বাংলাদেশিদের মধ্য জনপ্রিয় রেস্তোরাঁ ‘সাগর’ থেকে আনা হরেক রকম খাবার পরিবেশন করা হয়।

default-image

ডুয়ানির বর্তমান নির্বাহী কমিটিতে আছেন শওকত আনোয়ার (প্রেসিডেন্ট), মো. নকীব উদ্দিন (ভাইস প্রেসিডেন্ট), আজাদ হোসেন (অ্যাসোসিয়েট ভাইস প্রেসিডেন্ট), মো. রওশন আলম (জেনারেল সেক্রেটারি), মোস্তফা জামাল আনোয়ার (অর্গানাইজিং সেক্রেটারি), নূর মোহাম্মাদ (ট্রেজারার এবং কম্পট্রোলার), জাকারিয়া খন্দকার (এডুকেশন সেক্রেটারি), ফৌজিয়া খানম শিল্পী (সোশ্যাল, কালচারাল এবং রিলিজিয়াস), মো. খাইরুল ইসলাম (অ্যালামনাই রিলেশন অ্যান্ড নেটওয়ার্কিং), মোস্তাফিজুর রহমান (পাবলিক কমিউনিটি অ্যান্ড এক্সটারনাল রিলেশন) এবং রাহিদুর রহমান (মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশনস)। বিজ্ঞপ্তি

দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন