যেকোনো দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য সামান্য অপ্রীতিকর ঘটনাই যথেষ্ট। প্রতিটি সমর্থকের উচিত দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়, সমাজে উত্তেজনাকর ও অপ্রীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি না হয়, এমনভাবে খেলাধুলাকে উপভোগ করা, প্রিয় দল ও খেলোয়াড় নিয়ে প্রচার, উল্লাস করা।

যেহেতু ফুটবল বিশ্বকাপে বাঁধ ভাঙা উল্লাস আমাদের দক্ষিণ এশীয়দের একটি অন্যান্য ধারা, কাজেই উল্লাসকে কেন্দ্র করে সব ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতিকে মোকাবিলা করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও সদা তৎপর থাকতে হবে। যেসব এলাকা স্বাভাবিকভাবেই সংঘর্ষে জর্জরিত, যেখানে ফুটবল খেলা, বিভিন্ন দলের সমর্থন হতে পারে সংঘর্ষের নতুন ইস্যু ও অজুহাত।

কাজেই সব ফুটবল ভক্ত ও সমর্থক গোষ্ঠীর কাছ থেকে একটাই প্রত্যাশা, একটি সুষ্ঠু সুন্দর পরিবেশ বজার রেখে, বিশ্বকাপ ফুটবল উপভোগ করা, ফুটবল বিশ্বকাপের সৌন্দর্য রক্ষা করা। যেহেতু আয়োজনটা সমগ্র বিশ্বের মানুষকে ঘিরে, কাজেই সবার পছন্দকেই আমাদের সম্মান করতে হবে। উৎসবের নামে আমরা যেন অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষ ও অপ্রীতিকর ঘটনার সৃষ্টি না করি।

ফুটবল বিশ্বকাপ সবার জন্য হয়ে উঠবে আনন্দঘন, কাতার বিশ্বকাপ প্রসঙ্গে এটাই মূলকথা।

*লেখক: সিফাত রাব্বানী, শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা