নতুন কারিকুলাম যে কারণে আমার ভালো লাগছে

আমি নবম শ্রেণির একজন শিক্ষার্থী। এ বছর থেকে অষ্টম ও নবম শ্রেণিতে নতুন কারিকুলাম চালু হয়েছে। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যেসব কথা বা গুজব ছড়িয়েছিল, তা শুনে ও দেখে আমি খুব ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু নবম শ্রেণির বইগুলো পড়ার পর বুঝতে পারলাম আগের কারিকুলাম ও নতুন কারিকুলামের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। আগে শিখনপ্রক্রিয়া ছিল অধ্যায়ভিত্তিক ও কাঠামোবদ্ধ। আর এখন শিখনপ্রক্রিয়া একটি অভিজ্ঞতার আলোকে শিক্ষার্থী তার বাস্তব অভিজ্ঞতার পরিপ্রেক্ষিতে দলগতভাবে একটি ধারণায় উপনীত হয়ে শিক্ষার্থীকে সক্রিয়ভাবে ওই অভিজ্ঞতা সম্পন্ন করতে হয়।

নতুন শিক্ষাক্রমে শিক্ষার্থীদের শিখনপ্রক্রিয়া নিজেদের সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে সমস্যা সমাধান করতে হয়। যদি শিক্ষার্থীরা অভিজ্ঞতাভিত্তিক সমস্যা সমাধানে ব্যর্থ হয়, তাহলে শিক্ষকের সহযোগিতা ও অন্যান্য মাধ্যম থেকে তথ্য সংগ্রহ করে শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধান করতে হয়। এ শিক্ষাক্রমে শিক্ষার্থীদের ফাঁকি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এখানে শিক্ষার্থীরা জ্ঞান, দক্ষতা, দৃষ্টিভঙ্গি ও মূল্যবোধের মাধ্যমে প্রতিটি অভিজ্ঞতায় যোগ্যতা অর্জন করে।

নতুন কারিকুলামে নিয়ে যাঁরা বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ শিক্ষাব্যবস্থাকে অন্ধকারের দিকে নিয়ে যাচ্ছে বলে দাবি করেছিলেন, তাঁদের এই ধারণা আমার মতে সঠিক নয়। বর্তমান বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা পরিবর্তন করা জরুরি ছিল।

নতুন কারিকুলামের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী নিজেকে দক্ষ, সৎ ও মানবিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে পারবে বলে আমি মনে করি। এই শিক্ষাক্রমে পরীক্ষার পদ্ধতি না থাকার কারণে শিক্ষার্থী আনন্দের সঙ্গে হাতে-কলমে বাস্তব অভিজ্ঞতার পরিপ্রেক্ষিতে নিজেদের দক্ষতা ফুটিয়ে তুলতে পারবে। শিখনকালীন মূল্যায়নের কারণে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়মুখী হবে।

নতুন কারিকুলামের ক্লাসগুলো আমার খুবই ভালো লাগছে। কারণ, এই নতুন কারিকুলামের সব কটি বিষয় সবার সামনে সাহসের সঙ্গে উপস্থাপনা করতে হচ্ছে। এ ছাড়া সব কটি বিষয় হাতে-কলমে শিখতে হচ্ছে। যেমন ইংরেজি ক্লাসে সবার সামনে ইংরেজিতে আমাদের বিভিন্ন বিষয়ে উপস্থাপনা করতে হচ্ছে। আমাদের মধ্যে ইংরেজিতে কথা বলতে যে জড়তা ও ভয় ছিল, সেটা অনেকটাই কমে যাচ্ছে। তাই সবকিছু মিলিয়ে আমার নতুন কারিকুলাম খুবই ভালো লাগছে।

সম্পূর্ণা পণ্ডিত
শিক্ষার্থী
মোহনগঞ্জ পাইলট সরকারি উচ্চবিদ্যালয়,
মোহনগঞ্জ, নেত্রকোণা।
শিক্ষার্থী সম্পূর্ণা পণ্ডিত
শ্রেণি: ৯ম
রোল নম্বর: ১
শাখা: ক
শিফট: দিবা