default-image

বর্তমান বিশ্বের একটি উল্লেখযোগ্য সমস্যা মানুষের মধ্যে নৈতিকতা ও মূল্যবোধের অভাব। ইউনেসকোর মতে, দর্শনের জীবনবোধ, নীতি–নৈতিকতা, মানবিকতা, নান্দনিকতা, যুক্তিবোধ ও মননশীলতা বর্তমান বিশ্বের নানাবিধ সংকট ও সমস্যা থেকে মানবজাতিকে দিতে পারে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের সন্ধান। আর এ লক্ষ্যেই জাতিসংঘের ইউনেসকো ২০০২ সালের ২১ নভেম্বর প্রথমবার দর্শন দিবস ঘোষণা করে। ইউনেসকোর তৎকালীন ডিরেক্টর জেনারেল কইচিরো মাতুসুয়ারা বিশ্ববাসীর প্রতি এক বার্তা প্রেরণ করেন, যাতে ফুটে উঠেছে দর্শন বিষয়ের গুরুত্ব ও তাৎপর্য। এ দর্শন দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তরুণ সমাজ তথা বিশ্ববাসীর মধ্যে যে প্রভাব ফেলে, তা পর্যবেক্ষণ করে ২০০৫ সালের ইউনেসকোর সাধারণ সম্মেলনে নভেম্বর মাসের তৃতীয় বৃহস্পতিবার বিশ্ব দর্শন দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এরপর থেকে ইউনেসকোর আহ্বানে যথাযোগ্য মর্যাদায় প্রতিবছর নভেম্বর মাসের তৃতীয় বৃহস্পতিবার পালিত হচ্ছে বিশ্ব দর্শন দিবস। এ দিবসে বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ঢাবির দর্শন বিতর্ক ধারা।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ব দর্শন দিবসকে সামনে রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের বিতর্ক সংগঠন দর্শন বিতর্ক ধারার উদ্যোগে ‘বিশ্ব দর্শন দিবস ৪র্থ আন্তক্লাব বিতর্ক প্রতিযোগিতা’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় ঢাবির সূর্য সেন বিতর্ক ধারা (এসএসবিডি)। গত ১৩ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়া বিতর্ক প্রতিযোগিতায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪টি বিতর্ক ক্লাব অংশগ্রহণ করে। সম্পূর্ণ বিতর্ক প্রতিযোগিতাটি ভার্চ্যুয়াল মাধ্যম ডিসকোর্ড ও জুমে অনুষ্ঠিত হয়।

১৩ নভেম্বর হয় ট্যাব ফর্মেটে প্রিলিমিনারি রাউন্ডের বিতর্ক। ১৪ নভেম্বর কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনাল শেষে প্রতিযোগিতার ফাইনালে পৌঁছায় ঢাবির এসএসবিডি এবং প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির ডিবেটিং সোসাইটি (পিইউডিএস)। এরপর বিশ্ব দর্শন দিবসে, অর্থাৎ ১৯ নভেম্বর প্রতিযোগিতার ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন হয় ঢাবির এসএসবিডি এবং রানারআপ হয় পিইউডিএস।

default-image

চ্যাম্পিয়ন দলের সদস্যরা হলেন তানভীর হোসেন, আসাদুল্লাহ আল গালিব ও সুলতানুল আরেফিন বায়েজিদ। অন্যদিকে, রানার্সআপ দলের সদস্যরা হলেন সৌমেন সরকার, আততিহারুল কবির তিহার ও মু. মেহেদী রহমান। প্রতিযোগিতার শ্রেষ্ঠ বিতার্কিক ও যৌথভাবে ফাইনালের শ্রেষ্ঠ বক্তা হয়েছেন চ্যাম্পিয়ন দলের সদস্য তানভীর হোসেন। ফাইনালের অন্য আরেকজন শ্রেষ্ঠ বক্তা মু. মেহেদী রহমান।

সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যান ড. এ কে এম হারুনর রশীদ এবং দর্শন বিতর্ক ধারার মডারেটর ও দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আহমেদ উল্লাহ। এ ছাড়া পুরো বিতর্ক প্রতিযোগিতা পরিচালনায় ছিলেন দর্শন বিতর্ক ধারার সভাপতি আতকিয়া ফারিহা অন্তিক এবং সাধারণ সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম পান্থ।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0