বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

আলোচনার টেবিলের সব খবর বলে দেওয়া যায় না। তবে সবচেয়ে সহজে বলে ফেলা কঠিন কাজটা না বললেই নয়। সেটি? ‘নিজেরাই রান্না করব।’ কিন্তু! কেউ পেশাদার বাবুর্চি নই। আবার কেউ কখনো বন্ধুবান্ধবদের ছোট ঘরোয়া আয়োজনের রান্নার চেয়ে বেশি পারদর্শী নই। তবে এটাই সবচেয়ে মজার ব্যাপার হবে ধরে নিয়ে নিজেরাই দক্ষ বাবুর্চির ঢঙে বাজারের লিস্ট সাজিয়েছি। যথারীতি সে অনুসারে বাজার করে নিয়ে আসা হলো। পোলাওয়ের চাল, ডাল, ডিম, পানীয় , মসলাপাতি, সালাদের জন্য বেশ কিছু পদ।

কিন্তু জ্বালানি কাঠই যে পাওয়া গেল না! কী উপায়? চলো খুঁজি ক্যাম্পাসের এখানে–ওখানে। তাতে যে পরিমাণ লাকড়ি পাব, তাতে হয়তো আমাদের রান্না হয়ে যাবে। কিন্তু তাতে আসলে কি হয়েই যায়? কিছু লাকড়ি ‘লালন শাহ হল’ ম্যানেজার মারফত জোগাড় করা হলো। আসল চ্যালেঞ্জ কিংবা আমাদের আয়োজনের সব ব্যাপার, মানে ৬ তারিখের সবকিছু।

শীতের সকালে কুয়াশা ভেদ করে সুয্যি মামা উঁকি দিতে দিতে সকাল ১০টা। কিন্তু তৎক্ষণ কি বসে থাকা যায়? সকাল আটটায় সবাই কাজে লেগে যাই। হরেক পদের মসলা প্রস্তুত করে কোনো কোনো পদ পেস্ট করতে হবে। কিন্তু এত পরিমাণে সেসব করাটা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার। সেটাও সহজ হয়ে গেল আমাদের বিবাহিত বন্ধু জুবায়েরের কল্যাণে। রোস্টের জন্য মুরগি কিনে নিয়ে এসে থেকে শুরু হয় আমাদের রান্নার যুদ্ধ। এ সময়ে সবাই হয় বাবুর্চি, নয় সহযোগীর ভূমিকায়। অনেক নাম! ধরে ধরে বলতে গেলে বিশাল এক তালিকা বনে যাবে। রান্নার কাজে সবার আন্তরিক অংশগ্রহণ সবচেয়ে আনন্দের ব্যাপার ছিল। শাওন, সুমন, এশা, জেরিন, রাসেল, প্রিয়া, আনিচ, মঈনুল, আজাদ, কাইউম, হুমায়ূন আরও কত নাম! রান্নার কাজের ফাঁকে কিছু বন্ধু কুপন হাতে র‍্যাফল ড্র আয়োজন করতে কুপন বিক্রিতে ব্যস্ত। কেউ সাউন্ড সিস্টেমে পছন্দের গান বাজাতে, নাচ করতে, ছবি তুলতে ব্যস্ত। স্বকণ্ঠে গান গেয়ে আনন্দ দেওয়াদের তালিকায় মেহেদী, পূজা, নিবিড় অন্যতম।

রান্না শেষ হতে হতে বেলা তিনটা। সবাই অনেক ক্ষুধার্ত। জম্পেশ খাওয়া, নিজেদের রান্নার প্রশংসাকারীও আমরা নিজেরাই। খাওয়া শেষে খানিক জিরিয়ে, গল্প করে খেলাধুলা আর র‍্যাফল ড্রর পালা। সবাই একসঙ্গে গোল হয়ে বসে ‘সতিনের ছেলে কেউ নেয় না কোলে’ নামের একটা খেলা খেলেছি। একটা বড় খালি বোতলকে একটা গান বাজার সময়ে একে অপরের দিকে পাস করে করে শেষে যার হাতে গিয়ে গান শেষ হচ্ছে, সে উঠে যাবে। এভাবে খেলা এগিয়েছে। টানটান উত্তেজনা আর আনন্দে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় হয়েছে যথাক্রমে সাকিব, বন্যা, নিলয়। এর পরের আয়োজন ‘অন্ধের হাঁড়ি ভাঙা’। চোখে কাপড় বেঁধে একটা নির্দিষ্ট দূরের হাঁড়ি লাঠির আঘাতে ভেঙে ফেলার একটা চাতুর্যপূর্ণ খেলা। নাঈম এ প্রতিযোগিতায় একমাত্র হাঁড়ি ভাঙতে সক্ষম। শীতের দিনের পরিধি কমই, তাই যথারীতি সময়স্বল্পতায় পেয়েছে আমাদের। আমাদের সর্বশেষ আয়োজন, র‍্যাফল ড্র। ১৫ জনকে এখানে নির্বাচিত করা হয় যথেচ্ছাচারে। সবার অংশগ্রহণে বেশ কিছু গ্রুপ ছবিও তোলা হয়। এরপরই সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসায় আয়োজনের সমাপ্তি।

default-image

তবে সারা দিনের আনন্দ শেষ হয়েও যেন হইল না শেষ। আয়োজনের প্রান্তে ছিল কিছু আক্ষেপ। সে আক্ষেপ আরও আনন্দ করতে না পারার, সময়স্বল্পতার। তবে প্রাপ্তির কথায় আসা যাক। এই যে নিত্যপ্রয়োজনীয়! ভালোবাসা, শ্রদ্ধাবোধ, সহমর্মিতা, সহনশীলতার পাঠ আমরা একটি দিনের জন্য হলেও খুব ভালোভাবে পাস করতে সক্ষম হয়েছি। আমার বন্ধুদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। যাদের অংশগ্রহণ ছাড়া সার্থক হয়ে উঠত না এই আয়োজন।

লেখক: মঈনুল হক খান, শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

আয়োজন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন