default-image

শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, জাতির পিতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারা জীবন বাংলার মানুষের অধিকারের জন্য, স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করেছেন। তিনি এমন একটি রাষ্ট্রের স্বপ্ন দেখেছিলেন যেখানে জাতি, ধর্ম, বর্ণনির্বিশেষে কাঁধে কাঁধ রেখে বসবাস করবে। ধর্মের কারণে কোনো সংঘাত থাকবে না। প্রতিটি ধর্মের মানুষ স্বাধীনভাবে তাঁর ধর্ম-কর্ম পালন করতে পারবেন।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শতবর্ষ উদ্‌যাপনে বিশ্বধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের বিতর্ক সংগঠন ওয়ার্ল্ড রিলিজিয়ন ডিবেটিং ক্লাব এ আয়োজন করে। ‘এসো সম্প্রীতির আহ্বানে’ স্লোগানকে সামনে রেখে মুজিব বর্ষ ২য় আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি বিতর্ক উৎসব-২০২১ এর সমাপনী পর্ব ও ‘বঙ্গবন্ধু আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি’ শীর্ষক এ আলোচনার আয়োজন করে সংগঠনটি। ২য় আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি বিতর্ক উৎসবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ঢাবির অর্থনীতি বিভাগ (ইকোনমিকস স্টাডি সেন্টার)। রানার্সআপ আপ হয়েছে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগ।

অনলাইনে যুক্ত হয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ১৯৪৭ সালে ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ হওয়ার কিছুকাল পরই বঙ্গবন্ধু বুঝেছিলেন পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠীর শোষিত নীতির কারণে এ দেশে ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষা করা সম্ভব নয়। পরে বঙ্গবন্ধু প্রতিটি কার্যকলাপে অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে হৃদয়ে ধারণ করতেন। ৬৬-র ছয় দফা, ৬৯–এর গণ-অভ্যুত্থান, ৭০–এর নির্বাচনী ইশতেহারসহ প্রতিটি ক্ষেত্রেই তিনি আন্তধর্মীয় সম্প্রীতির জন্য কাজ করেছেন। ১৯৭১ সালে জাতির পিতার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি সংবিধানের চারটি মূলনীতির মাধ্যমে (গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ এবং ধর্মনিরপেক্ষতা) উনার অসাম্প্রদায়িক চরিত্রের চূড়ান্ত প্রকাশ করেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লালিত স্বপ্ন ছিল সম্প্রীতি ও ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার।

বিজ্ঞাপন

ওয়ার্ল্ড রিলিজিয়ন ডিবেটিং ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সারাফ নাওয়ারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্ল্ড রিলিজিয়ন ডিবেটিং ক্লাবের সভাপতি আবু সাঈদ অমি। এ ছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য এ এস এম মাকসুদ কামাল (শিক্ষা), বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ও ওয়ার্ল্ড রিলিজিয়ন ডিবেটিং ক্লাবের মডারেটর শফিউল ইসলাম।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘ ২০১১ সালে প্রতিবছরের ফেব্রুয়ারি মাসের ১ম সপ্তাহকে বিশ্ব আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি সপ্তাহ হিসেবে ঘোষণা করেছে। আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি সপ্তাহ উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ এবং আন্তধর্মীয় ও আন্তসাংস্কৃতিক সংলাপ কেন্দ্র যৌথভাবে বিশ্ব আন্তধর্মীয় সপ্তাহ পালন করে থাকে।

প্রতিবছর অত্যন্ত আনন্দমুখর পরিবেশে সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, সম্প্রীতি র‍্যালি, আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি কনসার্ট আয়োজন করা হয়। কিন্তু এ বছর অন্যান্য কাজের মতোই এই সপ্তাহ উৎসবমুখর পরিবেশে শারীরিকভাবে করা সম্ভব হয়নি। বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে এবারের আয়োজন স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা বিবেচনায় নিয়ে অনলাইনে আয়োজিত হয়েছে। যারা ইভেন্টগুলোতে অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হয়েছে, যারা হতে পারেনি, সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান শিক্ষামন্ত্রী। সবার সার্বিক সাফল্য কামনা করেন তিনি।

আয়োজন

ঢাবির ওয়ার্ল্ড রিলিজিয়ন ডিবেটিং ক্লাব অনলাইনে বিভিন্ন ইভেন্টের আয়োজন করেছিল। ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে একটি দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সেমিনার আয়োজন করে ক্লাবটি। যেখানে দেশ-বিদেশ থেকে প্রায় ২৫ জন স্কলার অংশগ্রহণ করেছে। মুজিব বর্ষ ২য় আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি বিতর্ক উৎসব-২০২১ আয়োজন করে তারা। গত বছরও তারা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এই বিতর্ক উৎসব আয়োজন করেছে (আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি বিতর্ক উৎসব- ২০২০)। যেখানে বাংলাদেশ থেকে মোট ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের বিভাগীয় বিতর্ক সংগঠন অংশগ্রহণ করে। প্রথমবারের মতো আয়োজন করে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপনে আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা-২০২১। এর প্রতিপাদ্য ‘রংতুলিতে সম্প্রীতির আভাস’। প্রতিটি চিত্রকর্মেই আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি উঠে এসেছে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও ঢাবির শতবর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে ‘আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি ছোট গল্প লেখন-২০২১’ আয়োজন করে। যার প্রতিপাদ্য ‘ধর্মীয় সংঘাত ভুলে সম্প্রীতিকে তুলে ধরি নতুন চিন্তায়’।

ইভেন্টগুলোয় বিজয়ীদের ফল

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও ঢাবির শতবর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে ‘আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি ছোট গল্প লেখন-২০২১’–এর
*১ম স্থান - মাহমুদ পিয়াস, ২য় বর্ষ, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, নম্বর: ১৬.৪/২০
*২য় স্থান - জাহিদ হাসান, ২য় বর্ষ, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ, নম্বর: ১৪.৩/২০
*৩য় স্থান - মন্জিলা বিনতে মোস্তফা, ২য় বর্ষ, বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ, নম্বর: ১৪/২০
আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার ফল
*১ম স্থান- জান্নাতুল নাঈমা, মাস্টার্স, বাংলা বিভাগ, নম্বর: ১৯/২০
*২য় স্থান - ফাতেমা তুয জোহরা, ৪র্থ বর্ষ, বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ, নম্বর: ১৭/২০
*৩য় স্থান - তাসমিয়া হোসেইন, ৩য় বর্ষ, বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগ, নম্বর: ১৫.৫/২০
২য় আন্তধর্মীয় সম্প্রীতি বিতর্ক উৎসবের ফল
• ফাইনালের শ্রেষ্ঠ বক্তা মবিন মজুমদার (প্রধানমন্ত্রী)
• টুর্নামেন্টের শ্রেষ্ঠ বক্তা আতিহারুল কবির তিহার
রানার্সআপ আপ: আইন বিভাগ, প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি (পিইউডিএস সাম্পান)
চ্যাম্পিয়ন: অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ইকোনমিকস স্টাডি সেন্টার) । বিজ্ঞপ্তি

বিজ্ঞাপন
আয়োজন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন