বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এমনই এক পরিবেশে ইফতার মাহফিল হয়ে গেল গত শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে। আয়োজক ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নত কিশোরগঞ্জ জেলার শিক্ষার্থীদের সংগঠন ‘কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্র ঐক্য পরিষদ’। ইফতারের খেলার মাঠ যেন পরিণত হয়েছিল, কিশোরগঞ্জ জেলার বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীদের এক মিলনমেলায়।

দীর্ঘদিন পর প্রিয় বন্ধু, অনুজ কিংবা বড় ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হলে অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। এ সময় মাঠজুড়ে সবাই মেতে ওঠেন খোশগল্পে। প্রকৃতিও তার উদার ডানা মেলে আমাদের সহযোগিতা করেছিল। ইফতার–পূর্ব মুহূর্তে একপশলা বৃষ্টি এসে আমাদের এ সুযোগ করে দেয়। মনে হলো, প্রকৃতি আমাদের সেই ইফতারে একাত্মতা জানিয়েছে।

ইফতারের সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে একে একে পরিচিত মুখগুলো মাঠে হাজির হতে লাগল। পুরো অনুষ্ঠানের চিত্র ড্রোন ক্যামেরায় ধারণ করার বিষয়টি ছিল চমকপ্রদ। ক্যামেরায় উপর থেকে সারি করে রাখা চেয়ারগুলো দূর থেকে খুব সুন্দর দেখাচ্ছিল। আবার মাঠের এক কোনায় শৈল্পিকভাবে ফুটিয়ে তোলা ‘কিশোরগঞ্জ’ লেখাটি চোখে পড়ল। সত্যিই অসাধারণ আয়োজন। আগে ক্যাম্পাসে অনেক ইফতারে অংশ নিয়েছি, কিন্তু এ রকম ইফতার আগে কখনো দেখার সুযোগ হয়নি।

যাহোক, আজানের সঙ্গে সঙ্গে খাওয়াদাওয়া শুরু হলো। সবুজের কাছাকাছি থেকে ইফতার করায় শিক্ষার্থীরা ছিলেন বেশ উচ্ছ্বাসিত। সবাই মজা করে ইফতার করছিলেন। হিমেল হাওয়া বারবার গায়ে দোলা দিচ্ছিল।

এদিকে ইফতারের পর সবাই নিজ নিজ গন্তব্যের দিকে ছুটলেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই পুরো মাঠ কোলাহলপূর্ণ অবস্থা থেকে নিস্তব্ধতায় রূপ নিল। মনে মনে ভাবতে লাগলাম, আবার কবে হবে এমন ইফতার!


লেখক: শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

নাগরিক সংবাদ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন