বিজ্ঞাপন

দেশের ফুটবল সংকটকাল অতিক্রম করছে। ফুটবলের চলমান চিত্রে ফুটবলভক্তরাসহ একসময়ের মাঠ কাঁপানো ফুটবলারদের সোনালি অতীত স্মরণ করে হতাশা ব্যক্ত করতে দেখা যায় প্রায়ই। গত ১০ বছরে ফুটবলের মান বাড়েনি, বরং পেছনের দিকেই হাঁটছে বাংলাদেশ।

default-image

দেশীয় ফুটবলের প্রতি ফুটবলপ্রেমীদের আগ্রহ কমেছে জৌলুশ হারানোতেই। অথচ ষাটের দশকেও দেশের ফুটবল সোনালি সময় অতিবাহিত করেছে। প্রতিভাবান খেলোয়াড়ের কমতি ছিল না। ব্রিটিশ ভারতে দেশীয় ফুটবল খেলা আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু ছিল। তবে এখন হারিয়ে গেছে ফুটবলের ফেলে আসা সেই সোনালি দিনগুলো। সেই সময়টাতে প্রিয় দল, প্রিয় খেলোয়াড়ের খেলা দেখার জন্য কাকডাকা ভোর থেকে ঢাকা স্টেডিয়ামের টিকিট কাউন্টারে ফুটবলভক্তরা রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকত টিকিটের জন্য। ফুটবলপাগল দর্শকদের টিকিট হাতে পাওয়া মাত্র খুশিতে আত্মহারা হয়ে স্টেডিয়ামে প্রবেশের জন্য ফটকপানে ছোটা, উৎফুল্লচিত্তে স্টেডিয়ামে প্রবেশের চিত্র ছিল দেখার মতো। তবে বর্তমানে দেশের ফুটবলের প্রতি মানুষের অনাগ্রহ দুঃখজনক। যদিও দেশীয় ফুটবলের এই দুরবস্থার জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরাই দায়ী। বড় ধরনের বাজেটের পরও ফুটবলের উন্নয়নে নেই যথাযথ পরিকল্পনা। মাঠের দুরবস্থার চিত্র তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। এ ছাড়া বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরি করতে না পারা, প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের যথাযথ মূল্যায়ন না করা, উন্নত মানের সরঞ্জাম, ব্যায়ামাগার করতে না পারা, যা অন্যদের থেকে পিছিয়ে দিচ্ছে আমাদের।

বাংলাদেশ এখন এশিয়ার কোনো একটি দেশের সঙ্গে ড্র করতে পারলেই যেন আত্মতৃপ্তি পাওয়া যায়। অথচ ভক্তদের চাওয়া আরও অনেক বেশি। এশিয়ার গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্ব ফুটবলে দাপিয়ে বেড়াবে, এমনটাই প্রত্যাশা। ভিন্ন দেশের সমর্থন করতে গিয়ে লড়াই না করে একদিন পুরো জাতি এক হয়ে নিজ দেশের জন্য গলা ফাটাবে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে উপস্থাপিত হবে দেশীয় ফুটবলের রূপকথার গল্প।
আর সে জন্য কর্তৃপক্ষের যথাযথ পদক্ষেপ জরুরি। তৃণমূল পর্যায় থেকেই প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের বের করে আনতে হবে। তাঁদের যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ এবং পরিচর্যা করতে হবে। দেশের মাঠগুলোর বেহাল দশা দূরীকরণ এবং উন্নয়নের লক্ষ্যে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। বিশ্ব মানের কোচ, আধুনিক ব্যায়ামাগার এবং সরঞ্জামের ব্যবস্থা করতে হবে। মানহীন বিদেশি খেলোয়াড়দের পরিবর্তে দেশীয় প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের বেশি সুযোগ দিতে হবে। ক্লাব ফুটবল গুলোর উন্নয়নে ব্যাপকভাবে তদারকি করতে হবে। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি সবার সার্বিক সহযোগিতা জরুরি। বাংলাদেশের ফুটবলের সোনালি দিন ফিরিয়ে আনতে এবং ঐতিহ্য রক্ষায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

বাংলাদেশও একদিন ফুটবল বিশ্বে সফলতার প্রতীক হিসেবে বিশ্ব মানচিত্রে জায়গা দখল করবে।

*লেখক: মামুন হোসেন, শিক্ষার্থী ঢাকা কলেজ, ঢাকা।

নাগরিক সংবাদ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন