default-image

ঋতুবৈচিত্র্যে হাড়কাঁপানো শীতকে বিদায় জানিয়ে আগমন ঘটেছে ঋতুরাজের। শাখে শাখে ফুল, আমের মুকুল, গাছে গাছে পাখির কলরব জানান দিচ্ছে বসন্তের আগমনী বার্তা। এ আগমনী বার্তা প্রকৃতিকে করে তুলেছে অপরূপ। শীতের রুক্ষতা মুছে দক্ষিণ হাওয়ায় ভর করে এসেছে বসন্ত। প্রকৃতি তাই উদ্বেলিত নবযৌবনের নবরূপ পাওয়ার আশায়।

‘হে কবি নীরব কেন? ফাগুন যে এসেছে ধরায়। বসন্ত বরিয়া লবে না তব বন্দনায়?’ প্রকৃতি আনমনা না হলেও কবি এবার আসলেই নীরব। মহামারি করোনা নীরব হতে বাধ্য করেছে। কালের পরিক্রমায় এবার প্রকৃতিতে আগমন ঘটেছে বসন্তের। মহামারি করোনার কারণে দীর্ঘ প্রায় ১ বছর বন্ধ ক্যাম্পাস। ফাগুনের মোহনায় নানা আয়োজনে হারিয়ে যেত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা। বসন্ত উপলক্ষে প্রতিবছরই থাকত বাহারি সাজ, হরেক আয়োজন।

বসন্তবরণ উপলক্ষে নানা উৎসবের আয়োজন করে থাকে ইবির বাংলা বিভাগ, যার মধ্যে আনন্দ শোভাযাত্রা, আলোচনা অনুষ্ঠান, সংগীতানুষ্ঠান, নৃত্য পরিবেশনা এবং বসন্তের কবিতা পাঠ উল্লেখযোগ্য। তবে জাঁকজমকপূর্ণ বসন্তবরণ এবার ঘরোয়াভাবে। মুঠোফোনের খুদে বার্তা আর ভার্চ্যুয়াল আয়োজনেই সীমাবদ্ধ।

বিজ্ঞাপন
default-image

বসন্ত মানেই তো রংবেরঙের খেলা। তাই তো সর্বোচ্চ রংটুকু দিয়ে নিজেদের সাজিয়ে ক্যাম্পাসে বাসন্তী উৎসবে মেতে উঠত শিক্ষার্থীরা। এতে অংশ নিত শিক্ষকেরাও। মেয়েদের পড়নে বাসন্তী শাড়ির সঙ্গে খোঁপায় হলুদ গাঁদা ফুল আর ছেলেদের পরনে বসন্তের আবিররাঙা পোশাক। ক্যাম্পাসজুড়ে ছেয়ে যেত লাল-হলুদ রঙে।

তবে বন্ধ ক্যাম্পাসে বাসন্তী উৎসব উদযাপন না হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বসন্ত উদযাপন করবে ভার্চ্যুয়ালভাবে। বসন্ত ও ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে দুই দিনব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে তাঁরা। IUian-ইবিয়ান গ্রুপে যা সরাসরি দেখা যাবে। রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টায় রয়েছে ‘ভাষা থেকে ভালোবাসায়, আমাদের কে টপকায়?’ শীর্ষক আঞ্চলিক রম্য বিতর্ক। এতে পুরান ঢাকা, বরিশাল, নোয়াখালী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও শেখপাড়া অঞ্চলের প্রতিনিধিদের জমজমাট লড়াই দেখা যাবে। একই দিনে রাত ৯টায় সফল ইবিয়ান জুটিদের নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘দুজনই ইবিয়ান’ অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে আগামীকাল সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টায় সাবেক কৃতী বিতার্কিকদের অংশগ্রহণে ‘প্রেমের ক্ষেত্রে মানের চেয়ে মানিব্যাগের গুরুত্ব বেশি’ শীর্ষক বিশেষ রম্য বিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া একই দিনে রাত ৯টায় ইবির খ্যাতনামা সংগীতশিল্পী ও খ্যাতনামা বংশীবাদক দলের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হবে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
*লেখক: আজাহার ইসলাম, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

নাগরিক সংবাদ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন