বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সিলিন্ডারের অগ্নিনির্বাপণ যন্ত্র শুধু ছোট ধরনের আগুনের জন্যই উপযোগী, মানে যে আগুন ধরার একদম শুরুর দিকে রয়েছে। এখন আগুন যদি ধরার শুরুতেই টের পেতে হয়, তাহলে তো স্বয়ংক্রিয়ভাবে আগুনের উপস্থিতি বোঝার জন্য কোনো যন্ত্র থাকতে হবে। কিন্তু আমাদের অভ্যন্তরীণ জাহাজ (অগ্নিনিরাপত্তা) বিধিমালা, ২০০১ খুঁজেও তো এমন স্বয়ংক্রিয়ভাবে আগুনের উপস্থিতি বোঝার জন্য কোনো যন্ত্র থাকার বাধ্যবাধকতা চোখে পড়ে না। তার মানে পানিতে নিভবে না এমন ধরনের আগুনের জন্য আমাদের বিধিমালাই অসম্পূর্ণ।

এখন নৌ ও নৌযন্ত্র প্রকৌশলী হিসেবে নকশাভিত্তিক কিছু কথা তুলে ধরি। যেকোনো জাহাজেরই ইঞ্জিনরুম আগুনের দিক থেকে চিন্তা করলে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। একইভাবে জাহাজের মধ্যে এমন কম, মাঝারি ও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিভিন্ন রুম ভাগ করা থাকে। সেই অনুযায়ী রুমগুলোর মাঝের দেয়াল বা বাল্কহেড ও ছাদ বিভিন্নভাবে ইনস্যুলেশন করা থাকে এবং অগ্নিনিরোধক দরজা ব্যবহার করা থাকে, যেন এক রুম থেকে তাপ বা আগুন অন্য রুমে যেতে না পারে। অথচ আমাদের দেশের প্রায় সব জাহাজেই ইঞ্জিনরুমগুলো খোলা দেখা যায়। তার মানে আগুন ধরে গেলে এই আগুন খুব সহজেই বেরিয়ে আসতে পারে এবং ছড়িয়ে যেতে পারে।

পত্রিকাতে দেখলাম যে অভিযান–১০–এর মালিক তাঁর প্রতিক্রিয়াতে জানিয়েছেন যে ইঞ্জিনরুমের আগুন নাকি সর্বোচ্চ দোতলা পর্যন্ত ওঠার কথা, এর ওপরে নয়। এর উত্তরে বলতে হয়, আগুন চলার পথ বন্ধ করার জন্য উপযুক্ত দেয়াল বা ছাদের ব্যবস্থা না করলে আগুন ছড়াবেই। যেহেতু আমাদের জাহাজগুলো সামনে থেকে একদম পেছন পর্যন্ত (অগ্নিনিরোধক দেয়াল বা দরজার অনুপস্থিতির মাধ্যমে) বা ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত (সিঁড়ির ফাঁকা জায়গার মাধ্যমে) উন্মুক্ত থাকে, আগুন একবার ভালোভাবে ধরে গেলে আসলে এটা ছড়ানো বন্ধ করার কোনো উপায় নাই। এর ওপর ইন্টেরিয়র কাজের জন্য যেই বোর্ড, আসবাব বা বিছানাপত্র ব্যবহার করা হয়, তাতে খুব সহজেই আগুন ধরে ছড়িয়ে পড়তে পারে। যে ব্যাপারগুলো বললাম, এগুলোও সম্ভবত আমাদের অভ্যন্তরীণ জাহাজ (অগ্নিনিরাপত্তা) বিধিমালা, ২০০১–এ নেই। তার মানে এ বিধিমালা বা আইনেরই উপযুক্ত সংশোধন এবং প্রয়োগ অত্যন্ত জরুরি হয়ে পড়েছে। এমন দুর্বল আইন দিয়ে আসলে কোনো রকমের অগ্নিনিরাপত্তা দেওয়াই সম্ভব না। আশা করি, যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে এ আবেদন পৌঁছাবে।

*লেখক: মোহাম্মদ তানভীর হোসাইন, নৌ ও নৌযন্ত্র প্রকৌশলী এবং বাংলাদেশ নৌ ও নৌযন্ত্র প্রকৌশলী অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাহী কমিটির সদস্য

পাঠক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন